শুভ জন্মদিন রিয়াজ, এই অভিনেতা আজ কত বছরে পা রাখলেন জানেন?

বাংলা চলচ্চিত্রের অন্যতম সফল ও জনপ্রিয় নায়ক রিয়াজ। চলচ্চিত্রের দুর্দশায় তিনিই সত্যিকারের হিরোর ভূমিকা পালন করেছিলেন।

অশ্লীল যুগে রিয়াজ একাই চলচ্চিত্রের হাল ধরেছিলেন। মধ্যবিত্ত ও শিক্ষিত শ্রেণির দর্শকদের হলমুখি করার কাণ্ডারিও তিনি। গত প্রায় তিনদশক ধরে দর্শকদের মুগ্ধ করা এই অভিনেতা আজ ৪৬ বছরে পা রেখেছেন।

রিয়াজের জন্ম ১৯৭২ সালের ২৬ অক্টোবর ফরিদপুরে। জন্ম ফরদপুরে হলেও রিয়াজের পৈত্রিক নিবাস যশোরে। তাঁর পুরো নাম রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ। স্কুল ও কলেজ জীবন কেটেছে ফরিদপুর ও যশোরে।

চলচ্চিত্রে প্রবেশ করার আগে রিয়াজ ছিলেন বাংলাদেশ বিমানের পাইলট। যুদ্ধ বিমানে ৩০০ ঘণ্টা ওড়ার গৌরবও অর্জন করেছেন এই তারকা। কিন্তু সেখানকার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে ভুল বুঝাবুঝির কারণে তিনি চাকরি ছেড়ে দেন।

সুদর্শন চেহারার রিয়াজকে চলচ্চিত্রে নিয়ে আসেন তাঁর চাচাতো বোন কিংবদন্তি অভিনেত্রী ববিতা। সেখানে রিয়াজকে দেখে নায়ক হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার জোর দাবী জানান প্রয়াত চিত্রনায়ক জসিম।

সেই থেকে শুরু। রিয়াজ প্রথম অভিনয় করেন ‘বাংলার নায়ক’ চলচ্চিত্রে ১৯৯৫ সালে। এর পরের বছরই ‘প্রিয়জন’ শিরোনামের একটি ছবিতে প্রয়াত নায়ক সালমান শহ’র সঙ্গে অভিনয় করেন।

শাবনূর ও পূর্ণিমার সঙ্গে জুটি বেঁধে সাফল্য পেয়েছেন রিয়াজ। শাবনূরের সঙ্গে ‘মন মানে না’, ‘ভালোবাসি তোমাকে’, ‘প্রেমের তাজমহল’, ‘ও প্রিয়া তুমি কোথায়’, ‘হৃদয়ের বন্ধন’ ও ‘মোল্লা বাড়ির বউ’সহ ৪০টিরও বেশি ছবিতে অভিনয় করেন।

এরপর রিয়াজ সফল জুটি গড়েন পূর্ণিমার সঙ্গে। ১৯৯৭ সালে মুক্তি পায় রিয়াজ-পূর্ণিমা জুটি অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র ‘এ জীবন তোমার আমার’।

এ জুটিও ‘মনের মাঝে তুমি’, ‘হৃদয়ের কথা’, ‘শাস্তি’ ও ‘আকাশ ছোঁয়া ভালোবাসা’সহ ৩০টিরও বেশি ছবিতে অভিনয় করেছেন।

এ ছাড়া রিয়াজের ক্যারিয়ারে উল্যেখযোগ্য ছবির মধ্যে রয়েছে হুমায়ূন আহমেদের- ‘দুই দুয়ারী’, এসএ হক অলিকের ‘আকাশ ছোঁয়া ভালোবাসা’ ও ‘হৃদয়ের কথা’, মতিউর রহমান পানুর ‘মনের মাঝে তুমি’, সুচন্দার ‘হাজার বছর ধরে’, ‘তৌকীর আহমেদের ‘দারুচিনি দ্বীপ’ ও গাজী মাহবুবের ‘প্রেমের তাজমহল’সহ অসংখ্য জনপ্রিয় সিনেমা।

চলচ্চিত্র ছাড়াও রিয়াজ অসংখ্য নাটক ও বিজ্ঞাপনচিত্রে কাজ করেছেন। অভিনয়ের স্বীকৃতি স্বরূপ তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারসহ বহু সম্মাননা পেয়েছেন জনপ্রিয় এই তারকা।