কচুর লতিতে গলা ধরে? এই টিপস জানলে আর গলা ধরবে না, হাতও চুলকাবে না

লতি কাটতে গেলেই হাত চুলকায়। আবার খেতে গেলেও ধরে গলা। তাই বলে কি লতি খাওয়া বন্ধ? না বুদ্ধি থাকলে এই সমস্যা থেকে পরিত্রান পাওয়া খুব সহজ।স্বাগতম আজকের টিপস সেকশনে। এই সেকশনে দৈনন্দিন কাজ সহজ করে দেয় এমন অনেক টিপস সেয়ার করা হয়ে থাকে। আজও তেমন একটি টিপস নিয়ে হাজির হয়েছি। আসা করি ভালো লাগবে আপনাদের ।

কচুর লতি কাটা, পরিস্কার করা ও ধোয়া নিয়ে অনেকেই অনেক রকম পদ্ধতি ফলো করে থাকেন। তবে অনেকেই জানেন কচুর লতি বাজার থেকে আনার সময় এটা ভেজা থাকে। আর এই ভেজা অবস্থায় কাটলে হাত চুলকায়। তবে কচুর লতি টাটকা রান্না করার থেকে ২-১ দিন ফ্রিজে রেখে কাটলে এটি কাটার সময় চুলকাবে না। চাইলে ফ্যানের নিচে রেখে শুকিয়ে নিতে পারেন। শুকিয়ে গেলে তারপর কাটুন। লতি ধোয়ার সময় দেখা যায় হাত চুলকায়।

এতে করনীয় কি? লতি ধোয়ার সময় হাত চুলকানো স্বাভাবিক। তাই ধোয়ার সময় একটি স্ক্রাবার দিয়ে ঘসে ঘসে পরিস্কার করুন। অথবা একটি জালি পাত্রে এটি নিয়ে ধুয়ে ফেলুন। তাহলে হাতেও লাগবে না আর চুলকানোর তো প্রশ্নই নেই। লতি পরিস্কার করার সময় স্ক্রাবার দিয়ে পরিস্কার করুন। তাহলে দ্রুত পরিস্কার করা যাবে। লতি ধোয়ার পর ভালো করে পানি নিংড়িয়ে নিবেন। তাহলে রান্না করার পর এটিতে গলা ধরার সম্ভাবনা আরও কমে যাবে। আর তাও যদি গলা ধরে তাহলে কচুর মতন এই লতিকেও সামান্য সিদ্ধ করে তারপর রান্না করুন। দেখবেন গলা আর ধরছে না।

আরো পড়ুন- চাকরির জন্য সিভি থেকে এখনই বাদ দিন এগুলো

সুখী জীবনের জন্য প্রয়োজন চাকরি। আর ভালো একটি চাকরির জন্য প্রয়োজন ভালো একটি সিভি। অনেক সময়ই দেখা যায়, পূর্ণ প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও ডাক পড়ছে না ইন্টারভিউতে। হয়তো সিভির ত্রুটির জন্যই বারবার চাকরির দোরগোড়া থেকে ফিরতে হচ্ছে আপনাকে। তাই সিভি তৈরির আগে খেয়াল রাখুন এই বিষয়গুলোর দিকে। মনে রাখবেন একমাত্র নিজের স্বাক্ষর ছাড়া সিভিতে নিজে হাতে কিছু লিখবেন না। সিভি অবশ্যই টাইপ করুন।

বানানে ভুল বা ব্যকরণগত ভুল কোনোভাবেই করা যাবে না। প্রয়োজন হলে সিভি তৈরির পর কাউকে দিয়ে ভাল করে চেক করিয়ে নিন। অনেকেই ভাবেন সিভিতে বেশি লেখাই ভালো। মনে রাখবেন এটা ভুল ধারণা। দুইপাতার বেশি সিভি বানাবেন না।মনে রাখবেন যতটুকু দরকার শুধুমাত্র ততটুকুই সিভিতে রাখুন। অপ্রয়োজনীয়, অদরকারী তথ্য দিয়ে সিভি অযথা ভারি করবেন না। যদি বাধ্যতামূলক না হয় তাহলে সিভিতে ছবি ব্যবহার না করাই ভাল। অনেক সময় মনে হতে পারে এর মাধ্যমে বিশেষ কারো দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাইছেন আপনি। প্রতি লাইনে রং পরিবর্তন করে রংধনু রংয়ের সিভি বানানোর কোনো প্রয়োজন নেই।

একটা বা দু’টো খুব হালকা রং ব্যবহার করা যেতে পারে। সিভির মাথায় হেডলাইনের মতো রেজিউমে বা সিভি বা বায়োডাটা কথাটা লিখবেন না। খুব ছোট ছোট পয়েন্টে দরকারি তথ্য পরিবেশন করুন। অর্ধেক পাতা জুড়ে দীর্ঘ প্যারাগ্রাফ লিখবেন না। রকমারী ফন্ট সাইজ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। খুব ছোট বা খুব বড় ফন্ট সাইজ ব্যবহার করবেন না। টেকনিক্যাল শব্দ খুব বেশি ব্যবহার না করাই ভাল। স্থানীয় কোনো ভাষা ব্যবহার না করে ইংরেজি ভাষাতেই লিখুন সিভি।