মোবাইল নাম্বার দিয়ে খুব সহজে কারো পরিচয় বের করবেন যেভাবে

ফোনে অপরিচিত নম্বর থেকে কল এসে হয়রানির শিকার হননি, এমন ব্যক্তি খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। তবে আধুনিক প্রযুক্তির যুগে আপনি কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করে সহজেই অপরিচিত ব্যক্তির পরিচয় জানতে পারেন।

মোবাইর নাম্বার দিয়ে পরিচয় বের করুন খুব সহজেই। এ জন্য গুগল প্লে স্টোরে রয়েছে কিছু মোবাইল ট্র্যাকিং অ্যাপ। এছাড়াও রয়েছে কিছু ওয়েবসাইট। এই অ্যাপ এবং সাইটগুলো মোবাইল নাম্বারটি ট্র্যাক করে সেটি কার নাম্বার তা জানিয়ে দিতে পারে।

TRUECALLER: এই অ্যাপটি মোবাইল ট্রাকিং অ্যাপ এর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয়। গুগল প্লে স্টোরে এই অ্যাপটি পাওয়া যাচ্ছে। অ্যাপটি মোবাইলে ফোন আসার সঙ্গে সঙ্গেই নোটিফিকেশনের মাধ্যমে আপনাকে জানিয়ে দেবে সেটি কার নাম্বার, যদি সেই নাম্বারটা আপনার ফোনে সেভ করা না থাকে। অ্যাপটি মোবাইল অথবা ওয়াইফাই নেটওয়ার্ক এর মাধ্যমে ট্র্যাক করে। তাই আপনাকে সব সময় মোবাইলে ইন্টারনেট সংযোগ রাখতে হবে।

WhosCall: ট্রুকলার এর বিকল্প অ্যাপের মধ্যে এটি সবচেয়ে জনপ্রিয়। অ্যাপটি গুগল প্লে স্টোর এবং অ্যাপল অ্যাপ স্টোরে পাওয়া যায়। এটির কার্যকারিতা ট্রুকলার এর মতোই। ২০১৯ সালে এই অ্যাপটি বাজারে আসে। এখনো পর্যন্ত প্রায় ৭০ মিলিয়ন ডাউনলোড হয়েছে। এই অ্যাপটির সবচেয়ে বড় বিশেষত্ব হল এটি ভুয়া কলকে ব্লক করে দিতে পারে।

Find and Trace: এটি একটি ওয়েবসাইট। এই ওয়েবসাইট যে কোন নাম্বারের তথ্য বের করে দিতে পারে। শুধুমাত্র নাম্বার নয় অজানা গাড়ির নাম্বার, অজানা ল্যান্ডলাইনের নাম্বার, অজানা পিনকোড, এসটিডি ,আইএসডি কোড ইত্যাদিও খুঁজে বের করতে পারে। সাইটটিতে ঢুকে আপনার সেই মোবাইল নাম্বারটি প্রবেশ করিয়ে সার্চ বাটনে ক্লিক করতে হবে। তাহলেই আপনি সেই মোবাইলের অনেক তথ্যই পেয়ে যাবেন। তবে এই ওয়েবসাইটটিতে আপনি কলারের নাম সব সময় খুঁজে নাও পেতে পারেন।

আরোও পড়ুন- যে ৪ ধরনের লোক ভুল করেও বেদানা খাবেন না, নাহলে দেখা দিতে পারে সমস্যা!

আমাদের খেয়ে বেঁচে থাকার জন্য সমস্ত কিছু দিয়েছে। সারা পৃথিবীতে শাক সবজি ও সব রকমের শষ্য উতপন্ন হয়। আর আমাদের জন্য প্ররকৃতির সবচেয়ে বড় উপহার হল ফল। ফল সবার জন্য খুবই উপকারি। সব বয়সের মানুষের উচিত রোজ একটি করে ফল খাওয়া।

কিন্তু এমন কিছু ফল আছে যা বিশেষ কিছু রোগ থাকলে খওয়া উচিত নয়। কোন রোগ হলে ডাক্তাররা তাকে সুস্থ করে তোলার জন্য ফল খাওয়ার পরামর্শ দেন। কিন্তু ডালিম বা বেদানা খাওয়া সকলের জন্য উপকারী নয়। বেদানা যেমন সুন্দর দেখতে লাল রঙের হয়, তেমন খেতেও খুব সুস্বাদু হয়। বেদানার রস শরীরের পক্ষে খুব উপকারি।

বেদানার রস শরীরকে তরতাজা করে তোলে। তাই অনেকে তাদের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় বেদানা রাখে। কিন্তু কখনো কখনো কারোর কারোর ক্ষেত্রে বেদানা মারাত্মক হতে পারে সেটা জানেন কি? এমনকি প্রান পর্যন্ত যেতে পারে। আজকে আপনাদের এমন চার প্রকারের ব্যাক্তির কথা বলবো যাদের জন্য বেদানা প্রানঘাতি হতে পারে। আসুন তাহলে জেনে নিন কাদের বেদানা খওয়া উচিত নয়…

১। কম রক্তচাপের লোকেদের বেদানা খওয়া একদম উচিত নয়। আজকালকার জীবনে উচ্চ রক্তচাপের রোগ বেশিরভাগ মানুষের থাকে। তাদের জন্য বেদানা একটি আশির্বাদ। বেদানা সেবনে উচ্চরক্তচাপের সব সমস্যা কমে যায়। আর আপনার যদি কম রক্তচাপের মত সমস্যা থাকে তাহলে আপনার জন্য বেদানা মারাত্মক ক্ষতিকারক। কারন তাতে রক্তচাপ আরো কমে যেতে পারে। আর তার ফলে প্রানসংশয় হতে পারে।

২। মানসিক রোগে আক্রান্ত যেসব রোগীরা, যারা নিয়মিত মানসিক রোগের জন্য ওষুধ খান তাদের জন্য বেদানা প্রায় বিষের সমান।

৩। সর্দি কাশিতে বেদানা খেলে শরীরের আরো ক্ষতি হয়। বেদানা সাধারনত ঠান্ডা ফল। তাই সাধারনত গরমকালেই এই ফল খাওয়া হয়। যাদের সর্দি কাশি বা ঠান্ডা লাগার ধাত আছে তাদের বেদানা খওয়া উচিত নয়। এর ফলে আরো ঠান্ডা লাগতে পারে। তাদের বেদানার পরিবর্তে গরম কিছু খাওয়া উচিত।

৪। অ্যালার্জিতে বেদানা খওয়া ক্ষতিকর। এমন অনেক লোক আছে যাদের ধুলো, বালি বা কোন নোংরাতে অ্যালার্জি আছে, তাদের পক্ষে বেদানা খওয়া খুব ক্ষতিকর। বেদানায় এমন কিছু উপাদান আছে যা অ্যালার্জির সমস্যাকে বাড়িয়ে তোলে। তাই আপনাদের মধ্যে যদি এই ধরনের কোন সমস্যা থাকে তাহলে এই বেদানা থেকে শত হস্ত দূরে থাকুন।